ট্রাস্টি বোর্ড

আবদুলস্নাহ আবু সায়ীদ
  বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী, জাতীয়ভাবে অভিনন্দিত শিক্ষক ও শিক্ষাবিদ, লেখক, টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব, পরিবেশ ও সামাজিক আন্দোলনকারী, সফল সংগঠক, আদর্শবাদী ও স্বপ্নদ্রষ্টা, অধ্যাপক আবদুলস্নাহ আবু সায়ীদ বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী।
প্রফেসর সায়ীদ তার প্রতিষ্ঠান বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের মাধ্যমে জাতিকে নেতৃত্ব দেবার উপযোগী একটি সম্পন্ন প্রজন্ম গড়ে তোলার জন্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
শিক্ষা ও সমাজ গঠনে তার অবদানের স্বীকৃতি হিশেবে তিনি সাংবাদিকতা, সাহিত্য ও উদ্ভাবনী যোগাযোগ পদ্ধতির জন্যে দেয়া এশিয়ার নোবেল প্রাইজ হিশেবে খ্যাতর্ যামন মাগসাইসাই পুরস্কারে ভুষিত হন ২০০৪ সালে। এ ছাড়াও আরো বহু পুরস্কার পেয়েছেন তিনি যার মধ্যে রয়েছে জাতীয় টেলিভিশন পুরস্কার, একুশে পদক, পরিবেশ পদক (গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার), বাংলা একাডেমী পুরস্কার সহ পনেরটিরও বেশি উচ্চ প্রশংসিত পদক ও পুরস্কার। প্রফেসর সায়ীদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এমএ ডিগ্রী অর্জন করেছেন।
মোহাম্মদ ফরিদউদ্দীন
  প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী জনাব মোহাম্মদ ফরিদউদ্দীন রাখী ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ১৯৫৬ সালে মর্নিং সান এ সাংবাদিকতা দিয়ে জনাব ফরিদউদ্দীনের কর্মজীবন শুরম্ন। ব্যবসায় যুক্ত হবার আগে বেশ কিছু জাতীয় দৈনিকে কাজ করেছেন তিনি। বহু সমাজ-কল্যাণমূলক কর্মকান্ডের সঙ্গে তিনি জড়িত আছেন। একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠা ও বিভিন্ন অবদানের জন্যে সুপরিচিত। জনাব ফরিদউদ্দীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্ত্মর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে এমএ।
একেএম রফিকউদ্দীন
  প্রখ্যাত প্রকৌশলী এবং নকশাবিদ জনাব একেএম রফিকউদ্দীন ডেভেলপমেন্ট ডিজাইন কনসালট্যান্টস লি. ঢাকা-র ব্যবস্থাপনা পরিচালক। একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত তিনি। বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন জনাব রফিকউদ্দীন। তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুরকৌশল বিষয়ে স্নাতক।
মাহবুব জামিল
  জনাব মাহবুব জামিল সিঙ্গার বাংলাদেশ লি., ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লি., আইসিই রিটেইল ইনিশিয়েটিভ লি., আইএল ক্যাপিটাল লি.-এর চেয়ারম্যান এবং রবি অ্যাঙ্য়িাটা লি.-এর বোর্ড অব ডিরেক্টরস-এর উপদেষ্টা।
ক্যাবিনেট মন্ত্রীর পদমর্যাদায় জনাব জামিল ২০০৮ সালে বাংলাদেশের তত্তাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার বিশেষ সহকারী হিশেবে শিল্প মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রনালয় এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন।
বর্তমানে জনাব জামিল ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স- বাংলাদেশ-এর নির্বাহী বোর্ড মেম্বার এবং আইজেনহাওয়ার ফেলোশীপ মনোনয়ন কমিটির সদস্য। এর পূর্বে তিনি মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, ঢাকা (এমসিসিআই); ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফসিসিআই)-এর প্রেসিডেন্ট, আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স-এর প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক এবং মাইক্রো ইন্ডাস্ট্রিজ ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিস্ট্যান্স সার্ভিসেস (মাইডাস)-এর পরিচালক হিশেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।
প্রায় চার দশক ধরে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত জনাব মাহবুব জামিল। এর মধ্যে বাংলাদেশ ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ-এর প্রেসিডেন্ট, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য এবং বেশ ক'বছর ফিল্ম সেন্সর বোর্ড এর সদস্য ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-এর জুরী বোর্ড-এর সদস্য হিশেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। সাংস্কৃতিক ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব জনাব মাহবুব জামিলের ফিল্ম, সমাজবিজ্ঞান এবং নাটক সঙ্কলনের ওপর বেশ কিছু প্রকাশনা রয়েছে।
১৯৮৪ সালে ব্যবসা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্যার জগদীশচন্দ্র স্বর্ণপদক এবং ১৯৯৫ সালে ব্যবস্থাপনা উৎকর্ষের জন্যে বাংলাদেশ শিক্ষা ব্যবস্থাপনা ট্রাস্ট স্বর্ণপদক পান জনাব জামিল। অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে ব্যবস্থাপনা উৎকর্ষের জন্য সাউথ-ইস্ট ব্যাংক পুরস্কার এবং ২০১২ সালে জন-সম্পদের উৎকর্ষ সাধনের জন্যে আজীবন অবদানের সম্মাননা।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান এবং সাংবাদিকতায় এমএ ডিগ্রী অর্জন করেছেন জনাব মাহবুব জামিল।
খোন্দকার মো. আসাদুজ্জামান
  দÿ প্রশাসক, সাহিত্যিক জনাব আসাদুজ্জামান বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব হিশেবে কর্মরত আছেন। এর পূর্বে তিনি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব হিশেবে এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিশেবে দায়িত্ব পালন করেন। বিশ্বসাহিত্যের কিশোর গল্পের অনুবাদক হিশেবে অত্যন্ত্ম খ্যাতিমান তিনি। বহু বিখ্যাত পত্র-পত্রিকা ও সংবাদপত্রে একাধিক বিষয়ে তাঁর লেখা বিভিন্ন সময়ে প্রকাশিত হয়েছে। সাহিত্য, সংগীত, চলচ্চিত্র, ভ্রমণ, ফটোগ্রাফি, বাগান করা ইত্যাদি বিষয়ে গভীর অনুরাগ রয়েছে জনাব আসাদুজ্জামানের।
খোন্দকার মো. আসাদুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে এমএ এবং সুইডেনের ওয়ার্ল্ড মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জেনারেল মেরিটাইম ও পরিবেশ সুরক্ষা বিষয়ে এমএ ডিগ্রী অর্জন করেছেন।
 
ড. ইফতেখারম্নজ্জামান
 

ড. ইফতেখারম্নজ্জামান ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)-র নির্বাহী পরিচালক এবং দুর্নীতির বিরম্নদ্ধে বৈশ্বিক সংগঠন বার্লিন ভিত্তিক ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল-এর আন্ত্মর্জাতিক বোর্ড-এর নির্বাচিত সদস্য। এর আগে ড. ইফতেখারম্নজ্জামান বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন ও শ্রীলংকায় অবস্থিত রিজিওনাল সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ এর নির্বাহী পরিচালক, ওয়াশিংটন ডিসি ভিত্তিক কাউন্সিল অন ফাউন্ডেশানস-এর আন্ত্মর্জাতিক কমিটির চেয়ারপারসন, রিজিওনাল সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ-এর ইন্টারন্যাশনাল রিসার্চ কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, সাউথ হ্যাম্পটন- যুক্তরাজ্য ভিত্তিক পারমাণবিক বিস্ত্মার রোধ প্রকল্পের কোর গ্রম্নপ মেম্বার, গেস্নাবাল ফান্ড ফর কমিউনিটি ফাউন্ডেশনের-এর অনুদান কমিটির সদস্যসহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছেন।

গবেষক ও সক্রিয় কর্মী হিসেবে গবেষণা, সামাজিক পরিবর্তন ও উন্নয়নে প্রচারণা ও প্রণোদনা, রাজনীতি ও পরিচালনা, অর্থসংগ্রহ ও অনুদান, আন্ত্মর্জাতিক সম্পর্ক এবং নিরাপত্তা ও আঞ্চলিক সহযোগিতার ওপর জনাব ইফতেখারম্নজ্জামানের অভিজ্ঞতা দীর্ঘ তিরিশ বছরেরও বেশি।
উন্নয়ন, পরিচালনা ও দুর্নীতি, রাজনীতি, দক্ষিণ এশিয়ার বিশেষ করে বাংলাদেশের নিরাপত্তা ও সহযোগিতার বিষয়ে জনাব ইফতেখারম্নজ্জামানের প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ১০টি এবং প্রবন্ধের সংখ্যা আশির ওপরে।
জনাব ইফতেখারম্নজ্জামান অর্থনীতিতে পিএইচডি।

মিজারম্নল কায়েস
 

জনাব মিজারম্নল কায়েস বর্তমানে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিশেবে কর্মরত। প্রাক্তন সচিব জনাব কায়েস এর আগে রাশিয়া ও মালদ্বীপে রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন। পররাষ্ট্র সচিব হিশেবে তিনি দ্বি-পা্ক্ষিক বিষয়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে আলোচনা ও অগ্রগতির ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। ইউনাইটেড নেশানস-এর আন্ত্মর্জাতিক সিভিল সার্ভিস কমিশনের একজন নির্বাচিত সদস্য জনাব কায়েস। পেশাগত ক্ষেত্রে খসড়া প্রস্তুত, মানবাধিকার, অভিবাসন ও উদ্বাস্ত্ম সংশিস্নষ্ট বিষয়, নিরস্ত্রীকরণ বা জলবায়ু বিষয়ে জনাব কায়েসের দক্ষতা সর্বজনবিদিত। বিশেস্নষক সদস্য হিশেবে ইউনাইটেড নেশানস-এর মানবাধিকার কমিশনের অভিবাসী ও মানবাধিকার বিষয়ক পাঁচ- সদস্য বিশিষ্ট ওয়ার্কিং গ্রম্নপ এবং ইউনাইটেড নেশানস-এর একাধিক ব্যুরোসহ বহু আন্ত্মর্জাতিক সভা ও সম্মেলনে কাজ করেছেন তিনি।
শিক্ষা ও শিল্পের ক্ষেত্রেও জনাব কায়েসের ভূমিকা অত্যন্ত্ম উজ্জ্বল। নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, ফরেন সার্ভিস একাডেমি, ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ, পাবলিক অ্যাডমিনিসট্রেশান ট্রেনিং সেন্টার (পিএটিসি)সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষতা করেছেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর অলটারনেটিভের সঙ্গেও জড়িত জনাব কায়েস।
সৌন্দর্য ও নান্দনিকতা, নাটক ও চলচ্চিত্র বিষয়ে বহু লেখা আছে তাঁর। নান্দনিকতা ও শিল্পের ইতিহাস বিষয়ে ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টস-এ পড়িয়েছেন তিনি। এছাড়াও তিনি বাংলা একাডেমী এবং আইটিআই-এর আজীবন সদস্য এবং ফ্রেন্ডস অব শেঙ্পিয়ার বার্থপেস্নস ট্রাস্ট ইন স্ট্র্যাটফোর্ড, ইউকে-র অনারারি সদস্য। একজন ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি হিশেবে প্রফেসর আবদুলস্নাহ আবু সায়ীদ-এর সঙ্গে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই জড়িত আছেন তিনি।
জনাব মিজারম্নল কায়েস এডওয়ার্ড এস. মেসন ফেলো হিশেবে হার্ভার্ড কেনেডি স্কুল অব গভর্নমেন্ট থেকে জনপ্রশাসনে স্বাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেছেন।

শাহ আলম সারওয়ার
  জনাব শাহ আলম সারওয়ার বর্তমানে আইএফআইসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। একই সাথে তিনি গ্রামীণ ব্যাংক এবং নেপাল বাংলাদেশ ব্যাংক-এর বোর্ড মেম্বার হিশেবেও কর্মরত আছেন। ব্যবস্থাপনার উচ্চ পর্যায়ে অবস্থান এবং গ্রাহক সেবা, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা ও আইটি ব্যবস্থাপনা সহ ব্যাঙ্কিং জগতে দীর্ঘ ৩০ বছরের অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ তিনি একজন অত্যন্ত্ম দক্ষ ব্যাংকার হিশেবে প্রতিষ্ঠিত।
স্ট্রাটেজিক রিস্ক ম্যানেজমেন্ট, বিজনেস প্রসেস রি-এঞ্জিনিয়ারিং, নতুন ধারার ব্যবসা সৃষ্টি এবং পরিবর্তন ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ব্যাঙ্কিং জগতে তার জ্ঞান সুগভীর। সিঙ্-সিগমা বস্ন্যাক বেল্টের অধিকারী জনাব সারওয়ার ক্রেডিট অ্যাক্রিডিয়েশান প্রসেস, ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড স্কিল অ্যাসেসমেন্ট, ক্রেডিট স্কিল অ্যাসেসমেন্ট এবং ক্রেডিট ইন কনটেঙ্ট-এ সার্টিফিকেট ধারী।
ট্রাস্ট ব্যাংক লি., প্রিমিয়ার ব্যাংক লি. ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রমোশান ও ডেভেলপমেন্ট কোম্পানী অব বাংলাদেশ লি., অ্যামেরিকান এঙ্প্রেস লি., এএনজেড গ্রীন্ডলেজ ব্যাংক লি. সহ বহু দেশী ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদে দায়িত্ব পালন করেছেন জনাব সারওয়ার। একজন ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি হিশেবে প্রফেসর আবদুলস্নাহ আবু সায়ীদ-এর সঙ্গে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠালগ্ন ১৯৭৮-৭৯ সাল থেকেই জড়িত আছেন জনাব সারওয়ার।
জনাব সারওয়ারের গভীর আগ্রহ চিত্রকর্ম, ধ্রম্নপদী সঙ্গীত ও সাহিত্যে।
অত্যন্ত্ম কৃতি ছাত্র জনাব সারওয়ার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এমএসএস এবং অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রী অর্জন করেছেন।
মনসুর আহমেদ চৌধুরী
 

জনাব মনসুর আহমেদ চৌধুরী বহু সংখ্যক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত। উলেস্নখযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অ্যাকশান এইড ইন্টারন্যাশনাল- বাংলাদেশ (এএআইবি)- এর বোর্ড মেম্বার; ইমপ্যাক্ট ফাউন্ডেশান বাংলাদেশ (আইএফবি)-এর প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি; সোশাল সার্ভিসেস অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ট্রাস্ট (এসএসএমটি)- স্যার জন উইলসন স্কুল, ঢাকা, বাংলাদেশের সচিব ও প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি; সেন্টার ফর সার্ভিসেস অ্যান্ড ইনফরমেশান অন ডিজঅ্যাবিলিটি (ডি সি আই)-এর সহ-সভাপতি এবং এক্সিকিউটিভ বোর্ড অব ডিজঅ্যাবিলিটি কাউন্সিল ইন্টারন্যাশনাল (ডিসিআই)-এর সদস্য তিনি। এ ছাড়াও তিনি ইউনাইটেড নেশানস মানবাধিকার কমিশনের প্রতিবন্ধীদের অধিকার বিষয়ক কমিটির সদস্য, বিশ্ব ব্যাংক ঢাকা এবং ইউএনএসক্যাপ ব্যাংকক- এর কনসালট্যান্ট, আইএফবি-র প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং কুড়িটিরও অধিক প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদে কর্মরত ছিলেন।
জনাব চৌধুরী ইউকে থেকে ব্যবস্থাপনায় উচ্চতর প্রশিক্ষণ, ইউএসএ থেকে পেশাদারী প্রশাসন বিষয়ে প্রশিক্ষণসহ ভারত, সুইডেন ও মালয়েশিয়া থেকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন।
কার্যোপলক্ষে দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, প্রশান্ত্ম মহাসাগরীয় অঞ্চল, মধ্যপ্রাচ্য, পশ্চিম ইউরোপ, স্ক্যানডেনেভিয়া, উত্তর আমেরিকা ও দক্ষিণ আফ্রিকার ৪৫টিরও অধিক দেশ ভ্রমন করেছেন জনাব চৌধুরী।
জনাব চৌধুরী সমাজে অসামান্য অবদানের জন্য বিভিন্ন পদকে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে উলেস্নখযোগ্য অতীশ দীপঙ্কর পদক, সিনিয়র অশোকা ফেলোশিপ, রোটারী ইন্টারন্যাশনাল থেকে মানবতার সেবা পুরস্কার ও সিঙ্গার বাংলাদেশ এবং চ্যানেল আই থেকে আজীবন অবদানের সন্ম্নাননা।
জনাব চৌধুরীর প্রকাশনার সংখ্যা ৩০-এর অধিক। এর মাঝে বেশ কিছু প্রবন্ধ বিভিন্ন কনফারেন্সে উপস্থাপিত হয়েছে।
জনাব মনসুর আহমেদ চৌধুরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জন প্রশাসন বিষয়ে এমএ।

 


  
বাস্তবায়নে : biTS
সহযোগিতায় : BRAC BANK