কেন্দ্র লাইব্রেরি

ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি আন্দোলন ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড আজ ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে- স্কুল, কলেজে, বিশ্ববিদ্যালয়ে, পাড়ায়, লোকালয়ে। তবু দেশের রাজধানীতে একটি বৃহদায়তন লাইব্রেরি গড়ে তোলা এবং সেখান থেকে বাড়িতে বই নিয়ে পড়ার সুযোগ সৃষ্টির জন্য ঢাকার বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের কার্যালয়ে গড়ে তোলা হয়েছে একটি লাইব্রেরি। এরই মধ্যে এই লাইব্রেরিতে সংগৃহীত হয়েছে প্রায় ২ লক্ষ বই। বছরে প্রায় ১০,০০০ পাঠক-পাঠিকা এই লাইব্রেরির গ্রন্থভান্ডার ও পাঠকক্ষ ব্যবহার করে উপকৃত হন।

সদস্য হওয়ার নিয়মাবলি
এক: গ্রন্থাগারের সদস্যপদ লাভ
ক. বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র গ্রন্থাগার-এর সদস্য হওয়া একটি সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র বিষয়। এটি কেন্দ্রের সভ্য হওয়া কিংবা এর অন্য কোনো বিভাগের সভ্য হওয়ার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নয়।
খ. এই গ্রন্থাগারের দুটো সুযোগ রয়েছে- এক: পাঠ কক্ষে বসে পড়া, দুই: গ্রন্থাগারের সদস্য হয়ে বাড়িতে বই নেওয়া।
গ. যথাযথ আবেদনপত্র পূরণের মাধ্যমে সদস্য পদের জন্য এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবিসহ আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র গৃহীত হলে সদস্য হওয়া যাবে।
ঘ. কাউকে সদস্যপদ দেওয়া, না দেওয়া বা পরিস্থিতিগত কারণে কারো সদস্যপদ বাতিল করার পূর্ব ক্ষমতা গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষের থাকবে।
ঙ. সদস্যকার্ড সদস্যকে নিজের কাছে রাখতে হবে। ঐ কার্ডের সাহায্যেই তিনি লাইব্রেরির বই দেওয়া-নেওয়া করবেন। প্রয়োজন হলে সদস্য নিজে না এসে অন্য কারো মাধ্যমেও বই দেওয়া-নেওয়া করতে পারবেন। এক্ষেত্রে সদস্য যাকে পাঠাবেন তার হাতে তাঁর স্বাক্ষরিত অনুরোধপত্র পাঠাতে হবে। তবে বই-এর দায়িত্ব সদস্যকেই বহন করতে হবে।

দুই: নিরাপত্তা অর্থ, মাসিক চাঁদা ও কার্ড সংরক্ষণ
ক. এই লাইব্রেরির সদস্য হতে হলে নির্ধারিত নিরাপত্তা অর্থ জমা দিতে হবে। নিরাপত্তা অর্থ জমা নেওয়ার সময় হিসাব বিভাগের প্রয়োজনে সদস্যের নমুনা স্বাক্ষর ও এক কপি সম্প্রতি তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি প্রয়োজন হবে।
খ. নিরাপত্তা অর্থের পরিমাণ ৩০০ টাকা (সাধারণ), ৬০০ টাকা (বিশেষ সদস্য) এবং ৯০০ টাকা (বিশেষ (ক) সদস্য)। প্রত্যেক সদস্যই তাঁর নিরাপত্তা অর্থের সমপরিমাণ মূল্যের বই নিতে পারবেন।
গ. নিরাপত্তা অর্থ ফেরতযোগ্য। তবে সদস্য হওয়ার এক বছরের মধ্যে নয়। সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি চাইলে নিরাপত্তা অর্থ ফেরত নেওয়ার আবেদন করতে হবে। আবেদন করার একমাস পরে টাকা ফেরত দেওয়া হবে।
ঘ. মাসিক গ্রন্থাগার চাঁদা ২০.০০ টাকা। ষান্মাষিক বা বার্ষিক ভিত্তিতে অগ্রিম চাঁদা দেওয়া বাঞ্ছনীয়। তবে একসঙ্গে ছমাস বা এক বছরের চাঁদা দিতে অসমর্থ হলে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে চাঁদা দেওয়া যেতে পারে।
ঙ. জরিমানা/চাঁদা বাকি পড়ার কারণে একসময় নিরাপত্তা অর্থ শেষ হয়ে গেলে স্বাভাবিকভাবে সদস্যপদ বাতিল হয়ে যাবে। সদস্যপদ নবায়ন করতে হলে তাঁকে পুনরায় নিরাপত্তা অর্থ প্রদান করতে হবে।

তিন: বই নেওয়া
ক. সংরক্ষিত, রেফারেন্স সিল অঙকিত এবং ইস্যুর জন্য নয় চিহ্নিত শেলফের বইগুলো গ্রন্থাগারিকের অনুমতিক্রমে শুধু গ্রন্থাগারের পাঠকক্ষে নেওয়া যাবে।
খ. একসঙ্গে সর্বাধিক দুটো বই বাড়িতে নেওয়া যাবে। তবে ইংরেজি বই হলে একসঙ্গে একটার বেশি নেওয়া যাবে না।
গ. একমাসের বেশি চাঁদা বাকি পড়লে বই সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে।

চার: বই ফেরত দেওয়া
ক. বই নেওয়ার দুসপ্তাহের মধ্যে অবশ্যই তা ফেরত দিতে হবে। বিশেষ কারণে তা সম্ভব না হলে অন্য কাউকে বইসহ পাঠিয়ে অথবা পত্রযোগে সদস্যের নাম ও কার্ড নম্বর উল্লেখ করে আবেদনের মাধ্যমে সময় আরো দুই সপ্তাহ পর্যন্ত বর্ধিত করা যেতে পারে।
খ. সদস্যের পক্ষ থেকে কোনো অনুরোধ না এলে তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এবং অনুরোধ এলে পঞ্চম সপ্তাহ থেকে বই ফেরত না দেওয়ার জন্য জরিমানা শুরু হবে। প্রতি সপ্তাহের বিলম্বের জন্য জরিমানা হবে ১০.০০ টাকা করে। পরবর্তীতে বই নিতে হলে জরিমানার অর্থ পরিশোধ করে বই নেওয়া যাবে।
গ. বই হারিয়ে ফেললে বাজার থেকে নতুন বই সংগ্রহ করে দিতে হবে। অন্যথায় বইয়ের দামের দ্বিগুণ পরিশোধ করতে হবে।

পাঁচ: সদস্যপদ স্থগিত, বাতিল এবং নবায়ন সংক্রান্ত গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষের ক্ষমতা
ক. যেকোনো সদস্যের সদস্যপদ নবায়ন, স্থগিত বা বাতিল করার ক্ষমতা গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষের থাকবে।
খ. অসাবধানতাবশত কেউ কার্ড হারিয়ে ফেললে, তাঁকে ২০.০০ টাকা নবায়ন ফি দিয়ে নতুন কার্ড করতে হবে। নতুন কার্ড করার সময় নিরাপত্তা অর্থ প্রদানের রশিদ অথবা সর্বশেষ যে মাসের চাঁদা পরিশোধ করা আছে তার রশিদ নিয়ে আসতে হবে। অন্যথায় গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষ রেজিস্টার দেখে সদস্যের চাঁদা ও নিরাপত্তা অর্থের পরিমাণ জেনে নতুন কার্ড সরবরাহ করবেন। এজন্যে ১৫ দিন পর্যন্ত সময় প্রয়োজন হবে।
গ. সাময়িক অসুবিধার কারণে আবেদনের প্রেক্ষিতে বই জমা দিয়ে সদস্যপদ স্থগিত রাখা যাবে। স্থগিতকালে কোনো মাসিক চাঁদা দিতে হবে না।
ঘ. সদস্যপদ স্থগিত না করে যদি কেউ বই লেনদের করা থেকে বিরত থাকেন এবং এ অবস্থায় যদি তাঁর কাছে গ্রন্থাগারের কোনো বই আটকে না থাকে তাহলে তাঁর আবেদনের প্রেক্ষিতে ঐ সময়কার চাঁদা গ্রহণ না করার ব্যাপারটি গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করতে পারেন।

ছয়: অন্যান্য
ক. ঠিকানা পরিবর্তন করলে সদস্যকে অবশ্যই পরিবর্তিত ঠিকানা গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে।
খ. বইয়ের মধ্যে যে কোনো কিছু লেখা/দাগ দেওয়া, ইচ্ছাকৃতভাবে বইয়েল পৃষ্ঠা/মলাট ছেঁড়া সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ। কোন সদস্যের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষ উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে।
গ. সাপ্তাহিক ছুটি মঙ্গলবার ছাড়া গ্রন্থাগারের সময়সূচি প্রতিদিন কর্মদিবসে বিকেল চারটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত। সরকারী ছুটির দিনগুলোতে লাইব্রেরি কার্যক্রম বন্ধ থাকে।

সদস্য হওয়ার নিয়মাবলি (পিডিএফ)    সদস্য হওয়ার আবেদনপত্র (পিডিএফ)
 

  
বাস্তবায়নে : biTS
সহযোগিতায় : BRAC BANK